নিকলীতে গরুর বাজার মন্দা, গরুর মূল্য একেবারে কম

40

বাজিতপুর কিশোরগঞ্জ সংবাদদাতা ঃ কিশোরগঞ্জের নিকলী উপজেলার জারইতলা ইউনিয়নের সাজনপুর গরুর হাট গত ১১ মাস ধরে মন্দা যাচ্ছে। ইজাদাররা গত বছর উচ্চ মূল্যে ইজারা ডাকার কারণে এ বছর গরুর বাজার একেবারেই লোকসান গুনতে হচ্ছে। কারণ গত বছর বৈশাখ মাসে হাওরে ইরি বোরো ধান কম হওয়ার কারণে কৃষক যেমন ধানের মুল্য পাচ্ছে তেমনি ভাবে কৃষকদের ধানের না পাওয়ার কারণে সাজনপুর গরুর বাজারে কৃষকরা গরু নিয়ে আসলে ও গরুর কোন মূল্য পাচ্ছে না। গত বুধবার সরজমিন গেলে বাজারী জানান, বর্তমানে গরুর খর ও বিভিন্ন জিনিসের দাম পূর্বের চেয়ে অধিক বেড়েছে। একটি গরু মোটা করতে গিয়ে ৬০/৭০ হাজার টাকা খরচ পড়ে। কিন্তু বর্তমানে সেই গরুর দাম বাজারে আসিলে ৪০/৫০ হাজার টাকা হওয়ার কারণে তারা গরু বিক্রি না করে বাড়ীতে নিয়ে যান। এর ফলে সাজনপুর বাজারে গরুর দাম কম হওয়ার কারণে ৪০/৪২ জন কর্মচারীদের বেতন চালাতে গিয়ে হিমসিম খেতে হচ্ছে। প্রতি বাজারে ইজারাদারদের ১০/১২ হাজার টাকা লোকসান গুনতে হচ্ছে। সাজনপুর বাজারের ইজারাদার মোঃ আলম মিয়া, মোঃ শাহীন মিয়া, সভাপতি মরছব আলী সাংবাদিকদের জানান, বর্তমানে সবকিছুর দাম বেড়েছে কিন্তু গরুর দাম না বাড়ার কারণে তাদেরকে বছরের প্রথম থেকে লোকসান গুনতে গিয়ে সর্বশান্ত হতে হচ্ছে বলে তিনি উল্লেখ করেন। তারা আরও বলেন, এভাবে যদি লোকসান গুনতে হয় তাহলে হয়তো একদিন সাজনপুর গরুর বাজার হারিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।