ভৈরব খাদ্য গুদামে বোরো ধান সংগ্রহ উদ্বোধন

44

মিলাদ হোসেন অপু, ভৈরব:
ভৈরব খাদ্য গুদামে অভ্যন্তরীণ বোরো ধান সংগ্রহের শুভ উদ্বোধন করা হয়েছে। ১৩ মে বুধবার থেকে পৌর শহরের নদী মেঘনা সরণি সরকারি খাদ্য গুদাম কার্যালয়ে এ বোরো ধান সংগ্রহের কার্যক্রম উদ্বোধন করা হয়।
ভৈরব উপজেলা নির্বাহী অফিসার লুবনা ফারজানার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, ভৈরব উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীরমুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব মো. সায়দুল্লাহ্ মিয়া। এ সময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, ভৈরব উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোহাম্মদ আলম শরীফ খান। উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রন কর্মকর্তা মো. জাহাঙ্গীর আলম, ভৈরব খাদ্য নিয়ন্ত্রণ কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) সানজিদা খানম, প্রমুখ।
এ বিষয়ে উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রন কর্মকর্তা মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, উদ্বোধনের প্রথম দিনে শিমুলকান্দি ইউনিয়নের দুইজন কৃষকের কাছ থেকে ২ মেট্রিকটন ধান ক্রয় করা হয়েছে। তারা হলেন মহিলা কৃষাণী স্বপ্না বেগম ও আলমগীর হোসেন। তাদের দুইজনের কাছ থেকেই সরকারি মূল্য ২৬ টাকা কেজি হিসেবে ধান ক্রয় করা হয়েছে। তবে তাদের প্রত্যকের ১ মেট্রিকটন বিক্রিয়কৃত ২৬ হাজার টাকা ব্যাংকের মাধ্যমে পরিশোধ করা হবে। আর পর্যায়ক্রমে তালিকাভুক্ত কৃষকদের কাছ থেকে ধান সংগ্রহ করা হবে বলে জানান তিনি।
কৃষক মো. আলমগীর মিয়া বলেন, সরকারের কাছে ধান বিক্রয় করে লাভবান হতে পেরেছি। তবে বিক্রিত টাকা পেতে ব্যাংকে একাউন্ট করতে হবে।
জানা যায়, ৪ মে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের অফিস কক্ষে লটারীর মাধ্যমে কৃষকদের কাছ থেকে চলতি মৌসুমে বোরো ধান ক্রয়ের তালিকা সংগ্রহ করা হয়। চাষীদের থেকে সরকারি মূল্যে ধান ক্রয় করা জন্য এই তালিকা করা হয়েছিল। ভৈরব মোট ২৭৯৫ জন বোরো ধানের চাষী রয়েছে। এই তালিকা থেকে লটারির মাধ্যমে ৮৬৮ জন চাষীদের প্রত্যকের কাছ থেকে ১ মেট্রিক টন করে ৮৬৮ মেট্রিক টন ধান ক্রয় করা হবে। সকল কৃষকদের নিকট থেকে ধান ক্রয় করার সুযোগ না থাকায় লটারীতে আরো প্রায় ২ শতাধিক অপেক্ষমান নামের তালিকা করা হয়েছে। লটারীর তালিকা অনুযায়ী কেউ ধান দিতে না পারলে অপেক্ষমান নামের তালিকার কৃষকরা ধান দিতে পারবে।
অনুষ্ঠানে সরকারি খাদ্য গুদামের কর্মকর্তা-কর্মচারী, এলাকার কৃষক ও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।