এ কেমন নিষ্ঠুরতা! আড়াই বছরের শিশুর লিঙ্গ কর্তন

7

আশরাফুল ইসলাম তুষার,কিশোরগঞ্জ:
কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জ উপজেলার গুজাদিয়া গ্রামের আব্দুল কুদ্দুস মিয়ার আড়াই বছরের শিশু আল মামুন।
মা ৬ মাস বয়সে স্বামী সন্তান ফেলে চলে যাওয়ার পর থেকে আল মামুনের বড় বোন চুমকি আক্তার তাকে মাতৃছায়া দিয়ে লালন পালন করে আসছে।
গত ৩১ মে সোমবার মাগরিবের পর চুমকি পাকের ঘরে রান্না সেরে থালা বাসন মাজতে বাহিরে যায়।এসময় বিদ্যুৎ চলে যায়,কিছুক্ষণ পরেই আল-মামুনের চিৎকার শুনে চুমকি দৌড়ে ঘরে গিয়ে আল মামুনকে কোলে নিয়ে সান্তনা দিতে গিয়ে দেখে তার লিঙ্গ নেই,কে বা কাহারা যেন লিঙ্গ কেটে নিয়ে গেছে।
লিঙ্গের স্থান থেকে অঝরে রক্ত পড়ায় চুমকি কিছু না বুঝে ভয়ে চিৎকার করতে থাকলে প্রতিবেশী লোকজন ও তার চাচা জালাল উদ্দিন আকন্দ এসে আল মামুনকে করিমগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়।সেখান থেকে কিশোরগঞ্জে শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ ও পরে ময়মনসিংহ চরপাড়া হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসা করালে প্রানে বেঁচে যায় আড়াই বছরের শিশু আল মামুন।
এ ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্যকর অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।এলাকাবাসীর দাবী এই ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত করে যারা এ ঘটনার সাথে জড়িত তাদেরকে কঠিন শাস্তি দেয়ার ব্যাবস্থা যেন করা হয়।
স্থানীয় ছাত্রলীগ নেতা মোজাম্মেল হক অপু বলেন,মাত্র আড়াই বছরের মাসুম বাচ্চা আল মামুনের লিঙ্গ কর্তন করায় তার জীবন দুর্বিষহ হয়ে গিয়েছে।
তাই মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও সমাজের বিত্তবান মানুষের কাছে আমাদের আকুল আবেদন শিশু আল মামুনের জীবন যাপন যেনো অন্য সবার মত হয় সে জন্য কার্যকর চিকিৎসার ব্যাবস্থা করা।