পাকুন্দিয়া পৌর নির্বাচনে মাঠে দলীয় রাজনৈতিক সরগরম মনোনয়ন জন্য প্রার্থীদের দৌড় ঝাপ

14


এম এ হান্নান পাকুন্দিয়া( কিশোরগঞ্জ )প্রতিনিধি: কিশোরগঞ্জে পাকুন্দিয়া পৌরসভা নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর থেকে নির্বাচন নিয়ে সরব আলোচনা শুরু হয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম থেকে চায়ের আড্ডায়। প্রথম নির্বাচনে বিএনপি ও পরের নির্বাচনে বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী মেয়র পদে জয়ী হয়। তাই এই নির্বাচনে মেয়র পদে দলীয় প্রার্থিতা নিয়ে পাকুন্দিয়ার স্থানীয় রাজনীতিতে শুরু হয়েছে নানা সমীকরণ। পাকুন্দিয়া পৌরসভা নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়েছে। আগামী ২রা নভেম্বর ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। রিটার্নিং অফিসার ও জেলা নির্বাচন অফিসার আশরাফুল আলম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, ৭ম ধাপে আগামী ২রা নভেম্বর পাকুন্দিয়া পৌরসভা নির্বাচনের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনে মনোনয়নপত্র জমাদানের শেষ তারিখ আগামী ৯ই অক্টোবর। এ ছাড়া মনোনয়নপত্র বাছাই ১১ই অক্টোবর, বাছাইয়ের বিরুদ্ধে আপিল দায়ের ১২ থেকে ১৪ই অক্টোবর, আপিল নিষ্পত্তি ১৬ই অক্টোবর, প্রার্থিতা প্রত্যাহার ১৭ই অক্টোবর এবং প্রতীক বরাদ্দ ১৮ই অক্টোবর অনুষ্ঠিত হবে। তফসিল ঘোষণা পর পাকুন্দিয়া পৌরসভা নির্বাচনের হাওয়া বইছে জোরে সোরে। রাজনৈতিক দলের সম্ভাব্য প্রার্থীরা দলীয় মনোনয়ন পেতে শুরু করেছেন দৌড়ঝাঁপ। পাশপাশি ভোটারদের মনোযোগ আকর্ষণের জন্য নির্বাচনী এলাকায় বিভিন্ন রংয়ের ব্যানার, ফেস্টুনে ছেঁয়ে গেছে। ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের মেয়র ও কাউন্সিলারদের ভাবনা কোনো রকমে দলীয় মনোনয়ন পেলে নির্বাচনে জয় নিশ্চিত। বিএনপি নেতাকর্মীরাও আশা করছেন নির্বাচন সুষ্ঠু এবং নিরপেক্ষ হলে তাদের জয় নিশ্চিত। এদিকে দলীয় প্রতীকে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার সরকারি দলের নেতাকর্মীদের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। একই দলে ৬ জন প্রভাবশালী প্রার্থী নিজেদের কে পৌর নির্বাচনের প্রার্থী হিসেবে প্রচার করায় মাঠ পর্যায়ে কর্মীদের মধ্যে বিভক্তিও দেখা দিয়েছে। আর এই সুযোগে সরকারি দলের বাইরে অন্য দলের প্রার্থীরা একে চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিতে প্রস্ততি নিচ্ছেন। সম্ভাব্য প্রার্থীদের মধ্যে আওয়ামী লীগের প্রার্থীর তালিকায় রয়েছেন সাবেক উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোঃ মেছবা উদ্দিন, আওয়ামী লীগের সদ্য সাবেক যুগ্ম আহবায়ক মোতায়েম হোসেন স্বপন, পাকুন্দিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের নতুন কমিটির যুগ্ম আহবায়ক ও ডিগ্রী কলেজের সাবেক ভিপি ফরিদ উদ্দিন, সাবেক পৌর কাউন্সিলর নজরুল ইসলাম আকন্দ, জেলা কৃষক লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক মোঃ বোরহান উদ্দিন, বতর্মান সংসদ সদস্য নুর মোহাম্মদ এর ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত ও উপজেলা সাবেক কৃষক লীগের সভাপতি বাবুল আহমেদ এই দিগে বিএনপির সম্ভব্য প্রার্থী বতর্মান মেয়র মোঃ আক্তারুজ্জামান খোকন ,উপজেলা বিএনপি র আহবায়ক ও সাবেক পৌর প্রথম মেয়র এডভোকেট মোঃ জালাল উদ্দিন । ২০১৬ সালের ৩১ অক্টোবর দ্বিতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় এ পৌরসভা। নির্বাচনে বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী আক্তারুজ্জামান খোকন নারিকেল গাছ প্রতীক নিয়ে মেয়র নির্বাচিত হয়েছিলেন।
এর আগে ২০১১ সালের ২৭ অক্টোবর অনুষ্ঠিত প্রথম নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী বর্তমান উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম রেনুকে পরাজিত করে মেয়র পদে নির্বাচিত হয়েছিলেন বিএনপি প্রার্থী অ্যাডভোকেট মো. জালাল উদ্দিন।