পাকুন্দিয়ায় উপজেলা চোরের উৎপাত আতঙ্কে এলাকাবাসী

8


এম এ হান্নান পাকুন্দিয়া ( কিশোরগঞ্জ ) প্রতিনিধি: কিশোরগঞ্জে পাকুন্দিয়া উপজেলা কিছু দিন যাবত চুরি বেড়ে গেছে। উপজেলার কোদালিয়া পশ্চিম পাড়া এলাকার এমরান পল্ট্রি ফার্মে থেকে সোমবার রাতে লেয়ার ৫৫ দিন বয়সে ৭১ টি মুরগি চুরির ঘটনা ঘটেছে । জানায়ায় চোরেরা এলাকার বিভিন্ন দোকানে বাড়িতে হানা দিয়ে মোবাইল ফোনসেট, মোটরসাইকেল, স্বর্ণালংকার গরুসহ বিভিন্ন মালামাল নিয়ে যাচ্ছে। এরমধ্যে নতুন করে চুরির খাতায় যুক্ত হয়েছে কমিনিটি ক্লেনিকে নলকূপ (টিউবওয়েল) ও মসজিদের মাইক । ফলে চোরের উৎপাতে অতিষ্ঠ এলাকাবাসী। বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে দেখার জন্য প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছে এলাকাবাসী। একজন স্কুল প্রতিনিধি মোঃ খলিলুর রহমান জানান বিভিন্ন পাড়া-মহল্লায় গত দুই-তিন মাসের ব্যবধানে বেশকিছু বাড়ি, ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে চুরি সংঘটিত হয়েছে। এছাড়া এলাকার বিভিন্ন রাস্তার চুরি, বাড়ির আঙিনা ও বিভিন্ন মসজিদে মাইক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের নলকূপ চুরির ঘটনা ঘটছে প্রতিনিয়ত। তাছাড়া উপজেলার কোদালিয়া,পাকুন্দিয়া ,জাঙ্গালিয়া,চরকাউনা, বুরুদিয়া,পাঠুয়াভাঙ্গা দরগাঁ বাজার, আজলদী,হোসেন্দী হরসি চুরি হয়ে গেছে।
এসব চুরির ঘটনায় সোমবার সকালে কোদালিয়া পঞ্চিম পাড়া এমরান বাদী হয়ে পাকুন্দিয়া থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে বলে জানা যায়। একজন কোদালিয়া বাজার ব্যবসায়ী উমর ফারুক বলেন, চোরেরা সাধারণত গভীর রাতে বিভিন্ন ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানসহ মানুষের বাড়িতে হানা দিচ্ছে। তারা নানা কৌশল অবলম্বন করে বাসাবাড়ির মূল্যবান মালামাল নিয়ে যাচ্ছে। চোরের কারণে আমরা অতিষ্ঠ। সব সময় আশঙ্কায় থাকতে হয়। আমরা দ্রুত আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পদক্ষেপ কামনা করছি।
চন্ডিপাশা ইউনিয়নে চেয়ারম্যান সামছ উদ্দিন জানান, গত দুই মাসে আমার এই ইউনিয়ন এলাকার বিভিন্ন মসজিদে দোকানে মুরগির ফার্মে গরু ঘরে সঙ্গবদ্ধ ভাবে চুরি হচ্ছে। এক কথায় চোরের যন্ত্রণায় আমরা অতিষ্ঠ। এ বিষয়ে পাকুন্দিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সারোয়ার জাহান মুঠোফোনে জানান, পাকুন্দিয়ি চুরির সঙ্গে জড়িত একটি মহল বিভিন্ন নেশাগ্রস্তরা জড়িত বলে ধারণা করা হচ্ছে। তবে ওইসব নেশাগ্রস্তদের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত আছে বলেও জানান ওসি।